মহেশখালী উপজেলায় আইন অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টায় দু’জন গুরুতর আহত; থানায় এজেহার দায়ের

প্রকাশিত: ১০:১০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৪, ২০২১
মহেশখালী প্রতিনিধি:
মহেশখালী উপজেলার কালারমার ছড়ার ইউনুসখালীতে জমি বিরোধের জের ধরে হামলা  মারাত্মক ভাবে  ২যুবক গুরুতর আহত হয়েছে।
গত ২ সেপ্টেম্বর  বৃহস্পতিবার বেলা ১২ টায় কালারমারছড়ার ইউনুছখালীর মাইজপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।  এতে ভুক্তভোগী আব্দু রহিম বাদি হয়ে ৭জনের নাম উল্লেখ করে আরও ৪/৫ জনের নামে মহেশখালী থানায় একটি এজাহার জমা দিয়েছেন বলে জানা যায়।
এজাহার সূত্রে জানা যায়, কালারমারছড়ার ইউনুছখালীর মৌজার বিএস খতিয়ান ২২ এর দাগ নং ২১০ ও ৫০৭ দাগের বিরোধে এডিএম ৯৯৯/২০১৯ মামলায় জমিতে প্রবেশে বারিত, মামলা চুড়ান্ত, মামলা নিষ্পত্তি রায় হওয়ার পর বিবাদীরা ক্ষিপ্ত হয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা চালিয়ে,মোবাইল ও পান বরজের তৈরী বাঁশ সহ আনুমানিক ২লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
বিভিন্ন নথিপত্র ও ভুক্তভোগী পরিবারের সুত্রে জানা যায়, দীর্ঘ ৩ বছর বাদী ও বিবাদীর উভয়ের পক্ষের যুক্তিতর্কে বিজ্ঞ আদালতে মামলাটি চুড়ান্ত নিষ্পত্তি করা হয়।  গত ১৮/০৮/২০২১ ইং তারিখে বিজ্ঞ আদালতের চুড়ান্ত রায়ের কপি মহেশখালী অফিসার্স ইনচার্জ কে সদয় অবগতি ও কার্যাথে ২১৪৫/২০২১/এডিএম স্মারক মূলে ও নিষেধাজ্ঞা ও রায়ের অনুলিপি পাঠালে ২৬/০৮/২০২১ মহেশখালী থানা রিসিভ করে। বিবাদী এনাম গং বার বার আদালতের রায় অবমাননা করে বিভিন্ন হামলা, হুমকি-ধামকিসহ পানের বরজ ভাংচুর অনবরত চলমান রাখে। নিরুপায় হয়ে নিজে ও পরিবারের নিরাপত্তার জন্য বাদী পক্ষের আব্দু রহিম গং ২২/০৮/২০২১ ইং তারিখে জিড়ি করেন যার জিড়ি নং ৯৩২ । ২৯/০৮/২০২১ ইং তারিখে বাদি পক্ষের আরেকজন হারুন তাহের গং কে বিভিন্ন ভাবে মেরে ফেলার হুমকিসহ পানের বরজে বর্গা চাষাদের আক্রমণ করলে এনাম গং কে বিবাদী করে আইন শৃঙ্খলার অবনতির পরিত্রাণ চেয়ে ও আদালতের নিষেধাজ্ঞা জোরালোভাবে কার্যকর করতে মহেশখালী থানায় অবহিত করতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
এছাড়া বাদী হারুন তাহের গং এর জায়গায় বর্গা চাষাদের বার বার আক্রমণ করলে তারা মহেশখালী থানায় নিজের নিরাপত্তা চেয়ে ০২/০৮/২০২১ ইং তারিখে জিড়ি দায়ের করেন।
ভুক্তভোগী আব্দু রহিম গং এর ভাইপো ও নিজ জমির মালিক এহেসান নিরাশ হয়ে আক্ষেপ করে বলেন, থানায় আদালতের চুড়ান্ত আদেশের সবকিছু নথি ও অভিযোগ দেওয়ার পরেও থানা বিবাদীর পক্ষে কোন বারিত নোটিশ প্রদান করেনি তা দুঃখজনক।
মামলার বাদী আব্দু রহিম বলেন, গত ২২/০৮/২১ ইং তারিখে বিজ্ঞ আদালত এডিএম ৯৯৯/২০১৯ মামলায় আসামী এনামুল হক গং’কে প্রবেশে বারিত আদেশ এবং মামলা চুড়ান্ত ও মামলা নিষ্পত্তি হয়।  বিবাদীরা দেশের আইন- আদালত অমান্য করে চাষাসহ আমাকে আহত করে ও আমাকে ও আমার পরিবারকে জীবননাশের হুমিকি দিয়ে বিভিন্ন মিথ্যে মামলায় জড়াবে বলে প্রচার করতে থাকে।  যা আইন শৃঙ্খলার অবনতির স্পষ্ট চিত্র৷ বিজ্ঞ  আদালতের আইন বলবৎ রাখতে দ্রুত কক্সবাজার জেলা পুলিশ ও মহেশখালী প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চাই।
মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই বলেন, জমি বিরোধের জের ধরে একটি এজাহার পেয়েছি,তা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।